।। আহ্বান।।

0
9

রাশেদা য়ে আশরার।
শিল্প, সাহিত্য ও চলচ্চিত্র শিল্পের মান উন্নয়ন কল্পে সরকারি-বেসরকারি ভূমিকা এবং পদক্ষেপঃ
আগে একটাই মাত্র চ্যানেল ছিল বিটিভি অনুষ্ঠান ছিল মানসম্মত এমনকি বিজ্ঞাপনগুলো ছিল শিল্পসম্মত বিনোদনমূলক। এখন ভুরি ভুরি চ্যানেল কিন্তু মনের মত অনুষ্ঠান নেই, গান হচ্ছে ঝাকানাকা সুর নেই- তাল নেই ছন্নছাড়া যদিও কিছু কিছু ভালো গান হয় কিন্তু সে গানগুলোর আবেদন আর আগের মত নেই।নেই প্রেমের সহজ সরল অভিব্যক্তি ভালোবাসার
আবেদন এমন কি অভিনেতা অভিনেত্রীদের সুঅভিনয় এবং দক্ষতার অভাব পরিলক্ষিত হয়!
আগের সিনেমা গুলোতে অভিনয় দেখলে মনে হতো নিজের জীবনেই ঘটেছে এখন কৃত্রিমতায় ভরা,দেখলে মনে হয় ন্যাকামি অথবা অতি অভিনয় করছে, নেই ভাষা জ্ঞান, জীবন ও বাঙালিয়ানা। সংস্কৃতির সাথে মিল নেই সেইসাথে ক্যান্সারের মতো ছড়িয়ে পড়েছে অশ্লীলতা;
পর্নোগ্রাফিতে ছেয়ে গেছে গোটা নেট দুনিয়া, চলচ্চিত্র এখন শুধু ব্যবসা- শিল্প, সাহিত্য বিলীন প্রায়!
স্বাধীনতা পরবর্তী সত্তর,আশি, নব্বইয়ের দশকে
চলচ্চিত্রের বাজেট ছিল স্বল্প, আধুনিক যন্ত্রপাতি ও প্রযুক্তির অভাব তবুও চলচ্চিত্র, নাটক ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান, হত রুচি, মানসম্মত এবং শিল্পসম্মত!
এখন প্রযুক্তি বেড়েছে, সুযোগ-সুবিধা কিন্তু সৃজনশীল মানুষের অভাব শিল্প সাহিত্য ও সৃজনশীলতা ধ্বংসের মুখে সভ্যতা বিপর্যস্ত!
সাদাকালো ছবি দেখলে আমরা নাক সিটকায় অথচ জীবন পরিপূর্ণ সাদাকালোতে…
উন্নত মানের এবং মানসম্মত অনুষ্ঠান করতে হলে মানুষের রুচি, স্বভাব, মানবতা এবং মনুষত্বের উৎকর্ষ সাধন সবার আগে প্রয়োজন। প্রাচ্য এবং পাশ্চাত্যর অনুকরণ নয় অনুসরন করে নতুন কাহিনী, চিত্রনাট্যে ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে মানসম্মত অনুষ্ঠান করা জরুরী- বিকৃত রুচির ভিনদেশী সংস্কৃতি দেশের শিল্প সাহিত্য অঙ্গনে অশুভ এবং বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তবতার দেয়ালে কোণঠাসা জীবন, অস্থিরতায় ভরা সময়।
চলচ্চিত্র শিল্পের মান উন্নয়নে ও যুগোপযোগী করার জন্য এগিয়ে আসা প্রয়োজন পরিচালক, প্রযোযক, শিল্পী, কলাকুশলী এবং আশু সমস্যা ত্বরান্বিত করতে সরকারি বেসরকারি, ব্যাপক সাহায্য সহযোগিতার প্রয়োজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here