প্রথম ধাপেই একচেটিয়া জয় আ’লীগের

0
14

অনলাইন ডেস্ক।।
বিচ্ছিন্ন সহিংসতা, হামলা ও ভাংচুরের মধ্য দিয়ে প্রথম ধাপের ২৪ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোট চলাকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বিএনপি প্রার্থী মারা যাওয়ায় খুলনার চালনা পৌরসভার মেয়র পদে ফলাফল স্থগিত রাখা হয়েছে। বাকি ২৩টির অধিকাংশ পৌরসভাতেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। দুটিতে জয় পেয়েছেন বিএনপির প্রার্থী। প্রায় সব পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিপুল ভোট পেয়েছেন। পক্ষান্তরে অন্য প্রার্থীদের ভোটের সংখ্যা খুবই কম।

এদিকে প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিত পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করেছেন নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তিনি বলেন, আমাদের কাছে যে রিপোর্ট এসেছে তাতে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে, নির্বাচন সাকসেসফুল হয়েছে। ভোটগ্রহণ শেষে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, খুলনার দাকোপ উপজেলার চালনা পৌরসভা নির্বাচনে ভোটের সময়ে বিএনপির প্রার্থী মারা যাওয়ায় ওই পৌরসভার মেয়র পদের ফল স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দেশের ২৪টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় সব পৌরসভায় শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হলেও কয়েকটি কেন্দ্রে বিক্ষিপ্ত সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে।

ভোট সাকসেসফুল : ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর আরও বলেন, পৌরসভা নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতি অনেক বেশি। সকাল থেকে লাইন দিয়ে ভোটাররা ভোট দিয়েছেন। আমাদের মাঠপর্যায়ের রিপোর্ট এবং আপনাদের (গণমাধ্যম) রিপোর্টের মধ্যে কোনো পার্থক্য দেখিনি। নির্ধারিত সময় ৪টার পরও ভোটাররা লাইনে ছিল। সেই হিসাবে আমরা বলি নির্বাচনটা খুবই সাকসেসফুলি হয়েছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পঞ্চগড় পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার গাড়ি যাওয়ার জন্য পুলিশ রাস্তা থেকে লোকজনকে সরতে বলার কারণে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে, ভাংচুর হয়। এ বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেব। আর সীতাকুণ্ড পৌরসভায় দুষ্কৃতকারীরা ইভিএম কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করে। তারা সফল হতে পারেনি। টানাটানিতে ইভিএমের মনিটরটি পড়ে ভেঙে যায়। পরে সেটি রিপ্লেস করে ভোটগ্রহণ করা হয়। এই ঘটনায় যারা জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এদিকে ঢাকার ধামরাই পৌরসভা নির্বাচনের সময় গণমাধ্যমকর্মীর ওপর হামলা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়ার ঘটনা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সচিব বলেন, এ ধরনের কোনো অভিযোগ আমাদের কাছে এখনও আসেনি। আপনাদের কাছ থেকে প্রথমে খবরটি শুনলাম। এ বিষয়ে আমরা খবর নেব। এ বিষয়ে প্রতিবেদন পেলে আমরা সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।

এসবের পরও কি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলা যাবে-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, হয়তো ভোটকেন্দ্রের বাইরে হাতাহাতি হতে পারে। কিন্তু ভোটকেন্দ্রে কোনো সমস্যা হয়নি। এখন রাস্তাঘাটে যদি কেউ সমস্যা করে বা দূরে কেউ কোনো সমস্যা করে সেটি তো নির্বাচনে কোনো অসুবিধা হয় না। তাই আমরা নির্বাচন সুষ্ঠুই বলব। আর সেজন্যই তো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়। বিদেশে তো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী লাগে না। সেখানে এমন হাতাহাতি হয় না। এ দায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নাকি ইসির জানতে চাইলে তিনি বলেন, না, এটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায় না, তাদের দায়িত্ব। আইনশৃঙ্খলার অবনতির চেষ্টা করলে সেখানে বাহিনীর সদস্যরা আছেন, মেজিস্ট্রেট আছেন, তারা ব্যবস্থা নেবেন। পৌরসভা নির্বাচনে কত শতাংশ ভোট পড়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোনো পৌরসভায় ৬০ শতাংশের কম ভোট পড়েনি। কোথাও কোথাও ৬০ থেকে ৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

ফলাফল- বেতাগী: বরগুনার বেতাগী পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবিএম গোলাম কবির ৬ হাজার ১০২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মো. হুমায়ুন কবির পেয়েছেন ৫১৯ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মহসিন পেয়েছেন ৩১৯ ভোট।

গফরগাঁও : ময়মনসিংহের গফরগাঁও পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী এসএম ইকবাল হোসেন (সুমন) ১২ হাজার ৩৯৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির শাহ্ আব্দুল্লাহ আল-মামুন পেয়েছেন ১৯০ ভোট।

মদন: নেত্রকোনার মদন পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. সাইফুল ইসলাম ৩ হাজার ১৪১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মো. এনামুল হক ১ হাজার ২২২ ভোট, জাতীয় পার্টির প্রার্থী ক্ষুদিরাম চন্দ্র দাস ১৫৬ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আব্দুর রউফ ১ হাজার ৪৪, মো. মাশরিকুর রহমান ১ হাজার ৫৯১ ভোট এবং দেওয়ান মোদাচ্ছের হোসেন ১ হাজার ৮৬৯ ভোট পেয়েছেন।

চাটমোহর : পাবনার চাটমোহর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন সাখো ৬ হাজার ৮১২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। এ পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী মো. আসাদুজ্জামান আরশেদ পেয়েছেন মাত্র ৮৫ ভোট। এছাড়া স্বতন্ত্র দুই প্রার্থী এসএম আব্দুল মান্নান ৮৪২ ভোট ও মির্জা রেজাউল করিম দুলাল ১৬১ ভোট পেয়েছেন।

পুঠিয়া : রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী মো. আল মামুন ৫ হাজার ৯২০ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মো. রবিউল ইসলাম ৫ হাজার ১৬০ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. গোলাম আযম (নয়ন) পেয়েছেন ১ হাজার ১৭৪ ভোট।

বদরগঞ্জ : রংপুরের বদরগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. আহাসানুল হক চৌধুরী ৯ হাজার ৭৩৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। এ পৌরসভায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আজিজুল হক ৪ হাজার ৪৭৮ ভোট, বিএনপির মো. ফিরোজ শাহ ২৯৮ ভোট ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. সাদ্দাম হোসেন ৩৭২ ভোট পেয়েছেন।

বাকেরগঞ্জ : বরিশালের বাকেরগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. লোকমান হোসেন ডাকুয়া ৭ হাজার ৪১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। এ পৌরসভায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. খলিলুর রহমান ২ হাজার ৪১১ ভোট ও বিএনপির এসএম মনিরুজ্জামান ৯১৪ ভোট পেয়েছেন।

উজিরপুর : বরিশালের উজিরপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মো. গিয়াস উদ্দিন বেপারী ৩ হাজার ৪০৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মো. শহিদুল ইসলাম খান ৪৪০ ভোট এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. কাজী শহিদুল ইসলাম ৪০২ ভোট পেয়েছেন।

কুয়াকাটা : পটুয়াখালীর কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আনোয়ার হাওলাদার ৩ হাজার ৩৩৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের আ. বারেক মোল্লা ২ হাজার ৬৮৪ ভোট, বিএনপির মো. আব্দুল আজিজ ৩২৬ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নুরুল ইসলাম মুসুল্লী ৫৭০ ভোট পেয়েছেন।

কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রাম সদর পৌরসভায় ২০ হাজার ৫৭১ ভোট পেয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজিউল ইসলাম বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। এ পৌরসভায় বিএনপির মো. শফিকুল ইসলাম ৫ হাজার ১৬৪ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবু বকর সিদ্দিক ৫ হাজার ২৬৪ ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আব্দুল মজিদ ৪ হাজার ৮৫ এবং স্বতন্ত্র মো. সাইদুল হাসান দুলাল ১ হাজার ৮১২ ভোট পেয়েছেন।

চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গা সদর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের জাহাঙ্গীর আলম মালিক ২২ হাজার ৩৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মো. সিরাজুল ইসলাম মনি ৬ হাজার ৫৬ ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. তুষার ইমরান ৪ হাজার ৫৯৭, স্বতন্ত্র তানভীর আহমেদ মাসরিকী ৪৫৩ ভোট, মো. মজিবুল হক মালিক ৭ হাজার ৬৫৭ ভোট, মনিরুল হাসান ৩০১ ভোট ও সৈয়দ ফারুক উদ্দিন আহম্মেদ ২৪২ ভোট পেয়েছেন।

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) : সীতাকুণ্ড পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলম বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) : বড়লেখা পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী রমজান আলী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

কুষ্টিয়া : খোকসা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তারিকুল ইসলাম বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

হবিগঞ্জ ও শায়েস্তাগঞ্জ : শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী মো. ফরিদ আহমেদ অলি বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন।

রাজশাহী : কাটাখালী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের আব্বাস আলী এবং পুঠিয়ায় বিএনপির আল মামুন খান মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছেন।

পঞ্চগড় : পঞ্চগড় পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জাকিয়া খাতুন নির্বাচিত হয়েছেন।

ফুলবাড়ী : দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌরসভায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মাহমুদ আলম ৭ হাজার ৭৫০ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মো. খাজা মইন উদ্দীন ৩ হাজার ৪৬০, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মুরতুজা সরকার মানিক ৭ হাজার ৪০ এবং বিএনপির মো. শাহাদাৎ আলী ৩ হাজার ৪২ ভোট পেয়েছেন।

চাটমোহর (পাবনা) : চাটমোহরে নির্বাচন দেখতে এসে সুজন মাহমুদ নামে নৌকা সমর্থক এক যুবক হৃদরোগে মারা গেছেন। সকাল ১০টার দিকে পৌর শহরের এনায়েতুল্লাহ সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রের পাশে এ ঘটনা ঘটে। তিনি উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের নটাবাড়িয়া গ্রামের শাহ মাহমুদের ছেলে।

রাজশাহী : রাজশাহীর কাটাখালীর ৮নং ওয়ার্ডের শ্যামপুরে ভোট গণনা শেষ হওয়ার পর ইভিএম ছিনতাইসহ সংঘর্ষে ৪ পুলিশসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ভাংচুর হয়েছে কয়েকটি মোটরসাইকেল ও পুলিশের একটি পিকআপ। পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুল লতিফের সমর্থকরা এ হামলা চালায় বলে পুলিশ জানিয়েছে।

ধামরাই (ঢাকা) : ধামরাই পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী দেওয়ান নাজিম উদ্দিন মনজু নির্বাচন বর্জন করেছেন। এজেন্টদের ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে না দেয়া এবং নারীসহ তার ৪ এজেন্টকে সরকারদলীয় মেয়র প্রার্থী বর্তমান মেয়র গোলাম কবির মোল্লার বাড়িতে বেঁধে রেখে মারধরের অভিযোগ করেন তিনি। তবে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এদিকে হুজুরিটোলা কলেজিয়েট স্কুল ভোটকেন্দ্রে প্রথম আলোর দুই সাংবাদিক জহির রায়হান ও অরূপ রায়ের ওপর হামলা হয়েছে। এতে জহিরের হাত কেটে রক্তাক্ত হয়। এ সময় তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়া হয়।

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) : দুপুর দেড়টার দিকে আলম সফি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে হামলা চালায় এক কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকরা। এ সময় কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের জিম্মি করে একটি বুথের ইভিএম মেশিন ভাংচুর করে তারা।

মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জ পৌরসভায় পোলিং এজেন্টদের জোরপূর্বক ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেয়াসহ নানা অভিযোগ তুলে পুনঃভোটের দাবি জানিয়েছেন বিএনপির প্রার্থী আতাউর রহমান।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here