September 30, 2022, 2:05 am

কোটচাঁদপুরে দিন দিন বাড়ছে পাটকাঠির কদর, লাভবান হচ্ছে কৃষক

মোঃ শহিদুল ইসলাম, কোটচাঁদপুর সংবাদদাতা।

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে বহুমুখী ব্যবহারে দিন দিন বাড়ছে পাটকাঠির চাহিদা
আগে জ্বালানি ও গরুর গোবরের ঘুটা তৈরীর কাজে ব্যাবহার হতো পাটকাঠি। আবার কেউ কেউ ঘরের বেড়া ও পানের বরে ব্যাবহার করত ভালো মানের পাঠকাঠি। এক সময় পাটকাঠি অবহেলার পণ্য হলেও বর্তমানে বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তির আশীর্বাদে বহু ক্ষেত্রে পাটকাঠির ব্যবহার বেড়েছে। যার ফলে দিন দিন বাড়ছে পাটকাঠির কদর। এতে করে শুধু পাট আঁশ নয়, পাটকাঠিতেও কৃষকরা দেখছেন আশার আলো। সোনালী আঁশের সঙ্গে কদর বেড়েছে পাটকাঠিরও। বাড়ি, পাকা সড়ক, মাঠ-ঘাট যেখানে চোখ যায় সেখানেই চোখে পড়ে পাটকাঠি শুকানো ও রক্ষণাবেক্ষণের কাজ।

এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পাটকাঠি আগের মতো অবহেলায় ফেলে না রেখে যত্ন করে শুকিয়ে মাঁচা তৈরি করে রাখছেন বিক্রির জন্য চাষিরা। আবার অনেকেই এখন পাটকাঠির ব্যবসা করে জীবকা নিবার্হ করছেন। স্থানীয়রা জানান, পাটকাঠি কোথাও আবার পাটখড়ি নামেও পরিচিত। আগে পাটকাঠির ব্যবহার বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ছিল শুধু জ্বালানি হিসেবে। আর কিছু ভালো মানের পাটকাঠি পানের বরজের আর ঘরের বেড়া তৈরিতে ব্যবহার করা হতো। কিন্তু এখন আর মূল্যহীনভাবে পড়ে থাকে না পাটকাঠি। বিশ্ববাজারে পাটকাঠির চাহিদা বাড়ায় আঁশের পাশাপাশি পাটকাঠির দামও ভালো পাওয়া যায়। অনেক কৃষক পাটের দাম খুব একটা ভালো না পেলেও পাটকাঠির দাম দিয়ে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন।

উপজেলার মুরুটিয়া গ্রামের পাট চাষি ফারুক মেম্বার বলেন, গত কয়েক বছর আগেও পাটকাঠির তেমন চাহিদা ছিল না। কিন্তু এখন বেশ চাহিদা। দূর দূরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা এসে পাটকাঠি কিনছেন, ভালো দামও দিচ্ছেন। মেপে এক হাত দড়ি দিয়ে এক আটি পাটকাঠি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকায়। শুধু পাট বিক্রি করেই নয়, এবার পাটকাঠিও আমাদের এলাকায় কৃষকের আশা জাগিয়েছে।

পাট চাষি সেলিম জানান, পাটকাঠি এক সময় শুধু রান্না-করার জ্বালানি, ঘুটা তৈরী, ঘরের বেড়া ও ছাউনির কাজে ব্যবহার করা হতো। তখন পাটকাঠির তেমন চহিদা ছিলনা। এখন বিভিন্ন কাজে পাটকাঠির ব্যাবহার হওয়ায় এর চাহিদা অনেক বেড়ে গেছে। দামও ভালো পাচ্ছি। দুর দুরান্ত থেকে ব্যাবসায়িরা এসে পাটকাঠি কিনে নিয়ে যাচ্ছে।

কেএমএইচ কলেজের ছাত্র রোকনুজ্জামান বলেন, পাঠকাঠি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় পার্টিকেল বোর্ড মিলে। এছাড়াও প্রসাধনী পণ্য, এয়ারকুলার, পানির ফিল্টার, বিষ ধ্বংসকারী ওষুধ, জীবন রক্ষাকারী ওষুধ, দাঁত পরিষ্কারের ওষুধ ও ক্ষেতের সার উৎপাদনের কাঁচা মাল হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। যে কারণে প্রতিনিয়ত পাটকাঠির চাহিদা দেশের পাশাপাশি বাড়ছে বিশ্ব বাজারেও।

কৃষিবিদ নজরুল ইসলাম বলেন, বহুমুখী ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে পাটকাঠির চাহিদা। ‘পাটকাঠির ছাই বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে। তাই ভালো দাম পাওয়া যাচ্ছে। পাটকাঠিকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বেশ কিছু কারখানা গড়ে উঠেছে। মিলগুলোতে কাঠের বিকল্প হিসেবে পাটকাঠি ব্যবহার করায় বনভূমি ও পরিবেশ রক্ষায় পাটকাঠি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। এক দিকে সোনালি আঁশ অন্য দিকে পাটকাঠি দুটি মিলে নতুন সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে পাট চাষে।’

কোটচাঁদপুর উপজেলা কৃষি অফিসার মহাসিন আলী বলেন, এবার পাটের বাজার মূল্য ও ফলন খুবই ভালো। রান্নার জ্বালানি ও কৃষি কাজে পাটকাঠি খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। কৃষি কাজে জমিতে মাচা তৈরি করতে সাধারণত বাঁশ ও সুতালির ব্যবহার হয়, পাটকাঠি দিয়ে সীম,শসা,করলা সহ বিভিন্ন ফসলের মাচা তৈরি খুব সহজে করা যায় এতে কৃষকের উৎপাদন খরচ অনেক কম হবে ও কৃষক আর্থিক ভাবে লাভবান হবে। জমিতে পাটকাঠি দিয়ে মাচা তৈরি করতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। অন্য দিকে চাষিরা পাটকাঠি বিক্রি করেও বেশ ভালো টাকা আয় করছেন। পাটের সোনালী আঁশের পাশাপাশি পাটকাঠিরও বেশ চাহিদা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     আরও সংবাদ :