September 29, 2022, 12:45 am

ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ চায় থিম্পু

অনলাইন ডেস্ক।।
ঢাকা থেকে থিম্পুর সঙ্গে সরাসরি বিমান যোগাযোগ বাড়ানো নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। বর্তমানে ড্রুক এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইট চলাচল করছে। এছাড়াও হলদিবাড়ি-চিলাহাটি হয়ে ভুটানে যাওয়ার জন্য রেল যোগাযোগের বিষয়েও আলোচনা চলছে। বর্তমানে সড়কপথে বুড়িমারি সীমান্ত দিয়ে ভারতের ট্রানজিট ভিসা নিয়ে ভুটান সফর করা যায়। সবমিলিয়ে ঢাকা ও থিম্পুর মধ্যে কানেক্টিভিটি বাড়াতেই জোর দিচ্ছে দু’পক্ষ।
মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) বিকেলে সফররত ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, ভুটান এসব প্রস্তাব দিয়েছে এবং আমরা এগুলো পরীক্ষা করে দেখছি। বিশেষ করে হলদিবাড়ি-চিলাহাটির ওপর দিয়ে ট্রানজিট ভিসা নিয়ে রেলে ভুটান যাওয়া যেতে পারে। পিপল টু পিপল সংযোগ ঘটানোর জন্য দুপক্ষ কাজ করছে বলেও জানান।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বুধবার (২৪ মার্চ) বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বসবেন। ওই বৈঠকে এসব বিষয় আলোচনার পাশাপাশি ভুটানের সঙ্গে দুটি সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে বলেও জানা গেছে।
এরআগে মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) সকালে ৩ দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং ঢাকা পৌঁছেছেন। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। ২১ বার তোপধ্বনির পর লাল গালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয় প্রতিবেশী দেশের সরকার প্রধানকে। তিন বাহিনীর সুসজ্জিত একটি দল গার্ড অব অনার প্রদান করে।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত জাতীয় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য প্রতিবেশী দেশগুলোর রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় লোটে শেরিং এর বাংলাদেশে এসেছেন।
সফরের প্রথম দিন বিমানবন্দর থেকে সরাসরি সাভারে অবস্থিত জাতীয় স্মৃতিসৌধে যান। স্মৃতিসৌধে লোটে শেরিংকে স্বাগত জানান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরিফ আহমেদ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নবম পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) মেজর জেনারেল শাহীনুল হক, ঢাকার পুলিশ সুপারিনটেন্ডেন্ট মো. মারুফ হোসেন সরদার এবং উচ্চ পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা। বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর একটি চৌকস দল তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। এ সময়ে বিউগলে করুণ সুর বাজানো হয়। স্মৃতিসৌধে শেরিং পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর করেন।
ভুটনের প্রধানমন্ত্রী পরিদর্শন বইতে লেখেন, মুক্তিযুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী বাংলাদেশের সাহসী সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো আমার জন্যে সম্মানের বিষয়। তাদের এই ত্যাগ বাংলাদেশের ইতিহাসের পাতায় সমুজ্জ্বল থাকুক। স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে তিনি একটি ফল গাছের চারাও রোপন করেন। এরপর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে যান অবস্থিত বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে। সন্ধ্যায় হোটেল সোনারগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া নৈশভোজে অংশ নেন লোটে শেরিং। উপভোগ করেন সাংস্কৃতিক পরিবেশনা।
বুধবার বিকেলে বঙ্গভবনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী। এরপর জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে ‘মুজিব চিরন্তন’ শীর্ষক জাতীয় অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন তিনি। তিন দিনের এ সফর শেষে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা ত্যাগ করবেন ময়মনসিংহ মেডিকেল থেকে শিক্ষাজীবন শেষ করা ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং। মুজিব জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর এ আয়োজনে অংশগ্রহণ করতে আগামী ২৬ মার্চ ঢাকা সফরে আসবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     আরও সংবাদ :