September 22, 2021, 1:51 am

দর্শনা থানাধীন ইশ্বরচন্দ্রপুরের আলোচিত হত্যা মামলার প্রধান আসামী সুজন গ্রেফতার

দৈনিক পদ্মা সংবাদ, নিউজ ডেস্ক।।

চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা থানাধীন ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামের শহিদুল হত্যা কান্ডের প্রধান আসামী সুজনকে আটক করেছে দর্শনা থানা পুলিশ।

চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা থানাধীন ইশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামে গত ৩১ জুলাই বেলা ১২ ঘটিকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহিদুল ইসলাম কে নৃশংসভাবে হত্যা করে সুজন।

হত্যা কান্ডের পর থেকেই গা ঢাকা দেয় সুজন।

ঘটনার পরদিন নিহতের মেয়ে আমেনা খাতুন বাদি হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখ করে দর্শনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।
আসামিরা হলেন, সুজন, এবং সুজনের বাবা আমজাদ হোসেন,মা বেলেহার বেগম , ভাই শামীম, বোন কাজল ও মামা সোলাইমান।

আজ মঙ্গলবার বেলা ৩ ঘটিকার সময় চুয়াডাঙ্গা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম দর্শনা থানায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান , ঘটনা ঘটার পরদিন নিহতের মেয়ে আমেনা খাতুন বাদি হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখ করে দর্শনা থানায় একটি হত্যার মামলা দায়ের করে ।

মামলা রুজু হওয়ার পর থেকেই মান্যবর পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলামের দিক নির্দেশনায়, দামুড়হুদা সার্কেল এসপি এর সহযোগিতায় দর্শনা থানার ইনচার্জ মাহাব্বুর রহমান কাজল ও তদন্ত অফিসার শেখ মাহব্বুর রহমানের নেতৃত্বে খুনি সুজনকে ধরতে জাল বিস্তার করে।

দর্শনা থানা পুলিশের অক্লান্ত চেষ্টার পর ২ আগষ্ট দিবাগত রাত পৌনে চার ঘটিকায় ঝিনািইদহ জেলার মহেশপুর থানাধীন মানিকদিহি গ্রাম থেকে এক আত্মীয়র বাড়ি থেকে অত্র মামলার প্রধান আসামী সুজনকে আটক করতে সক্ষম হয়
এবং অপর আসামিদের গ্রেফতারের পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে ।

উল্লেখ্য চুয়াডাঙ্গার দর্শনা থানাধীন ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামে গত ৩১ জুলাই দুপুর ১টার দিকে দু’বন্ধু সুজন ও জাকিরের মধ্যে পিতাকে ব্যঙ্গ করার সূত্রধরে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায় সুজন ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়ি থেকে চাকু এনে তাহার আলীর ছেলে শহিদুলের বুকে আঘাত করে পালিয়ে যায়।

ঘটনা স্থলে থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় শহিদুলকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত্যু বলে ঘোষণা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ:
BengaliEnglish