June 22, 2021, 11:04 am

নাকেও হতে পারে অ্যালার্জি।

যারা বংশানুক্রমে অ্যার্টপি বা অ্যালার্জি বহন করে থাকে, তাদের এ সমস্যা কখনো কখনো মারাত্মক আকার ধারণ করে। অ্যালার্জির বড় কণাগুলো নাকে ও ছোট কণাগুলো ফুসফুসে সমস্যা সৃষ্টি করে। যাদের নাকে অ্যালার্জি হয়, তাদের মধ্যে শতকরা ১৭ থেকে ১৯ জনের হাঁপানি হয়ে থাকে। যাদের হাঁপানি আছে, তাদের মধ্যে শতকরা ৫৬ থেকে ৭৪ জনের নাকে অ্যালার্জি থাকে। বায়ুম-লের দূষণ, ধুলাবালি, সিগারেটের ধোঁয়া থেকে অ্যালার্জি ছাড়াও নাকে ইরিটেশন বা উত্তেজনা হতে পারে। কিছু অ্যালার্জি সারাবছর ধরে থাকে। যেমনÑ যাদের মাড়িতে ডাস্টমাইট থাকে। কোনো কোনো অ্যালার্জি বছরের নির্দিষ্ট সময়ে হয়।
ঘন ঘন ও বেশি বেশি হাঁচি, নাক দিয়ে ঝরঝর পানি ঝরা বা নাক সব সময় বন্ধ থাকা; নাক, চোখ ও গলায় চুলকানি হলে ধরে নিতে হবে এটা সাধারণ কোনো চুলকানি নয়। কারণ অ্যালার্জির কারণে এ সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ ধরনের অ্যালার্জেন সাধারণত নাক, গলা ও ফুসফুসে আক্রমণ করে বসে। এ জন্য গলাব্যথা বা গলা বসে যাওয়া এবং দম বন্ধ ভাব হয়ে থাকে।
করণীয় : ধুলাবালি, ধোঁয়া, ঠা-া এড়িয়ে চলতে হবে। বাড়িতে কার্পেট, পুরনো বই, কাপড় বা ফোমের সোফা সরিয়ে ফেলতে হবে। তোশককে রেক্সিন বা ম্যাট্রেস দিয়ে মুড়িয়ে রাখতে হবে। ফুলের রেণু থেকে দূরে থাকতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শে স্টেরয়েড স্প্রে ব্যবহার করা যায়। এরপরও সমস্যা না কমলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।লেখক : অ্যালার্জি ও অ্যাজমা রোগ বিশেষজ্ঞ
(দুরন্ত নিউজ রিপোর্টার)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ:
BengaliEnglish