October 1, 2022, 2:54 pm

নাঙ্গলকোটে মা-ভাবিকে কুপিয়ে হত্যা, ঘাতক আটক

অনলাইন ডেস্ক।
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে বোনের বাড়ি থেকে পাঠানো পিঠা খাওয়ানোয় মা ও ভাবিকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ সোমবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার আদ্রা দক্ষিণ ইউনিয়নের পুজকরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনার পরপরই অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম (২৫) নামের ওই যুবককে ছুরিসহ আটক করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পরে পুলিশ গিয়ে তাঁকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
নিহত দুজন হলেন সাইফুলের মা নুরজাহান বেগম (৬৫) ও সৎভাবি নুরুন্নাহার (৪৫)। এই ঘটনায় আহত সাইফুলের ভাতিজি আরজু বেগমকে (১৯) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আদ্রা দক্ষিণ ইউনিয়নের পুজকরা গ্রামের আবদুল হাইয়ের মেয়ে জেসমিন আক্তারের একাধিক বিয়ে ও বিচ্ছেদ হয়। সর্বশেষ জেসমিন আক্তার একই গ্রামের শাহজাহানকে বিয়ে করেন। তবে জেসমিনের আপন ভাই সাইফুল ইসলাম এই বিয়ে মেনে নিতে পারেননি। গত রোববার জেসমিনের বাড়ি থেকে সাইফুলদের বাড়িতে পিঠা পাঠানো হয়। এরপর ওই পিঠা মা নুরজাহান বেগম সাইফুলকে খাওয়ান।
বোনের বাড়ির পিঠা কেন তাঁকে খাওয়ানো হলো—এ নিয়ে সোমবার সকালে মা নুরজাহান বেগমের সঙ্গে সাইফুলের কথা–কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সাইফুল ছুরি দিয়ে তাঁর মাকে কুপিয়ে জখম করেন। এরপর তাঁর সৎভাই আজিজুল হকের স্ত্রী নুরুন্নাহারের গলায় ও মাথায় ছুরিকাঘাত করেন। এ সময় সাইফুল তাঁর ভাতিজি আরজু আক্তারের ৯ মাস বয়সী কন্যাশিশু আফসানা আক্তারকে কোপাতে যান। তখন আরজু আক্তার বাধা দিলে তাঁকেও কোপানো হয়। স্থানীয় লোকজন এসে আহত তিনজনকে উদ্ধার করে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পথে রওনা হন। পথেই মারা যানা নুরজাহান ও নুরুন্নাহার। আর আরজুকে নেওয়া হয় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এ সময় এলাকাবাসী ছুরিসহ সাইফুলকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     আরও সংবাদ :