September 22, 2021, 5:06 am

ভারতের বিরুদ্ধে কি যুদ্ধের প্রস্তুতি, চিনা সেনাদের তৈরি থাকার নির্দেশ জিংপিনের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুদ্ধের জন্য তৈরি হচ্ছে চিন? বিশেষ সূত্রে তেমনই খবর পেয়েছে নয়াদিল্লি। জানা গিয়েছে চিনা সেনাদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিংপিন। সীমান্তে যে কোনও ধরণের পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে, সেই প্রেক্ষিতেই এই নির্দেশ বলে জানা গিয়েছে।
বুধবার অর্থাৎ ১৪ই অক্টোবর যে বিশেষ সামরিক সূত্রের রিপোর্ট মিলেছে তাতে জানা গিয়েছে বেজিং চিনা সেনাদের তৈরি থাকার নির্দেশ দিয়েছে। ভারতের বিরুদ্ধে চরম কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারে চিন, সেই প্রেক্ষিতকে সামনে রেখেই এক বিতর্কিত তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে।
জানা গিয়েছে জিংপিন চিনা সেনাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন মাথা ও উদ্দিপনা যুদ্ধের জন্য ব্যবহার করতে হবে। ১৩ অক্টোবর গুয়াংডং প্রদেশে তিনি সেনা ক্যাম্প পরিদর্শনে যান। সেখানেই এই তথ্য তিনি দিয়েছেন বলে খবর। সংবাদসংস্থা জিনহুয়াকে উদ্ধৃত করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সিএনএন।
সিএনএন জানাচ্ছে চাওঝাও শহরের মেরিন কর্পসেও পরিদর্শন করেন তিনি। সেখানে তিনি চিনা সেনাদের বলেন হাই অ্যালার্টে থাকতে। দেশের প্রতি একনিষ্ঠ ভরসার যোগ্য হয়ে প্রত্যেক চিনা সেনাকে লড়তে হবে বলে জানান তিনি।
১৩ই অক্টোবরই দুই দেশের মধ্যে সীমান্তে ১১ ঘন্টার বৈঠক হয়। সেখানে আজব দাবি করে চিন। বেজিংয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সেনা অবস্থান পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে দিতে রাজি চিন। তবে ভারতের সামনেও শর্ত রাখা হয়েছে। ভারতের দাবি ছিল মে মাসের আগের অবস্থায় ফিরে যেতে হবে চিনা সেনাকে। অর্থাৎ প্যাংগং লেকের উত্তর প্রান্তের ফিঙ্গার ৮য়ে ফিরে যেতে রাজি চিন।
ভারতের সামনেও সেনা অবস্থান বদলের শর্ত রেখেছে চিন। জানানো হয়েছে ভারতকেও নিজের এলাকা ছেড়ে পিছনে সরতে হবে। ফিঙ্গার ফোর থেকে সরে ফিঙ্গার ২য়ে চলে যেতে হবে ভারতীয় সেনাকে। কিন্তু কেন সরাতে হবে ভারতের সেনাবাহিনীকে।
বৈঠকে কথা হয়েছে প্যাংগং লেকের উত্তর ও দক্ষিণ প্রান্ত নিয়ে। ভারতীয় সেনা কৌশলগত দিক থেকে সুবিধা জনক অবস্থানে রয়েছে বলে বেশ চিন্তায় চিন। উল্লেখ্য ভারতীয় সেনা স্পানগার থেকে রিচিন লা পর্যন্ত এলাকার দখল নিয়েছে আগেই।
এদিকে, মঙ্গলবার ভারতকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে চিন কার্যত সমালোচনার সুরে জানায়, সীমান্তে ভারতের ক্রমাগত নির্মাণ কাজ করে যাওয়াকে ভালো চোখে দেখছে না তাঁরা। বেজিং এদিন জানিয়েছে ভারতের এই পদক্ষেপ সীমান্তের উত্তাপ বাড়াচ্ছে। চিনের সঙ্গে সম্পর্ক আরও খারাপ হতে পারে এই ধরণের কাজে।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ:
BengaliEnglish