June 22, 2021, 8:20 am

মুন্সিগঞ্জে মেঘনার ডাকাত সর্দার গ্রফতার ১

সেখ সেলিম, দৈনিক পদ্মা সংবাদ।
মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মেঘনা তীরবর্তী কালিরচর গ্রামের বাবলা বাহিনীর প্রধান বাবলা চৌধুরী ওরফে উজ্জল খালাসীকে আটক করেছে মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশ জানা গেছে।
গত সোমবার সকালে মুক্তারপুর এলাকার ধলেশ্বরী নদী থেকে তাকে আটক করা হয়।
ডাকাত বাবলা পার্শবর্তী চাঁদপুর জেলার উত্তর মতলব থানার মহনপুর গ্রামের বাচ্চু খার ছেলে। বাবলা ও তার বাহিনীর লোকজন মেঘনা নদীতে দিনে চাঁদাবাজি, রাতে ডাকাতিসহ নানা ধরনের অপরাধ ও অপকর্মে লিপ্ত ছিলো। সম্প্রতি জামিনে বের হয়ে বাবালা ও তার সহযোগিরা বেপরোয়া হয়ে উঠে। বাবলার বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ সদর থানা এবং পার্শবর্তী চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানায় ডাকাতি, চুরি, ছিনতাইসহ প্রায় পাচ টা মামলা চলমান আছে। মেঘনা তীরবর্তী গ্রামের বাসিন্ধা এবং নৌপথের চলাচলকারী নৌযান চালক ও যাত্রীরা ছিলো বাবলা বাহিনীর আতংকে থাকতো।
বাবলা বাহিনী ও তার দলের সদস্যরা মেঘনা নদীতে টলার দিয়ে ডাকাতি করিত। সম্প্রতি বাবলা জেল থেকে জামিনে বের হয়ে আসায় আবারও জনমনে আতংকের সৃষ্টি হয়। স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে বেশ কয়েকবার বিভিন্ন পএিকায় ও অনলাইনে বাবালা বাহিনীর ডাকাতি ও তাদের নানা অপরাধ অপকর্মের বিরুদ্ধে তিন পর্বের ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। প্রতিবেদন প্রকাশের পর বিষয়টি গুরুত্বসহকারে আমলে নেয় মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশ। নদীতে পুলিশ অভিযানকালে পুলিশ জানতে পারে বাবলা নৌপথে পালিয়ে যাচ্ছে। তাৎক্ষনিক মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশের একটি টিম ধলেশ্বরী নদীতে অবস্থান করে বাবলাকে আটক করে।
স্থানীয় গ্রামবাসীদের তথ্য সুত্রে জানা যায়, বাবলা ও তার বাহিনীর লোকজন কালিরচর এলাকার মেঘনা নদীতে দীর্ঘদিন যাবত ডাকাতি করে আসছিলো। পরবর্তীতে কালিরচর গ্রামে বাচ্চু বেপারীর মেয়েকে বিবাহ করে কালিরচর গ্রামে স্থায়ীভাবে আশ্রয় নেয়।
মেঘনা নদীর মতলব সীমানায় চুরি, ডাকাতি ও ছিনতাইসহ নানা অপরাধ করে পার্শবর্তী চাঁদপুর জেলার মতলব এবং মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার কালিরচরে আত্নগোপনে থাকতেন। শুধু তাই নয় কালিরচর গ্রামেও গড়ে তোলেন বিশাল বাহিনী।
বিগত দিনে পুলিশসহ অন্যান্য আইনসৃংখলা বাহিনীর সাথে বন্ধুক যুদ্ধে বাবলার অনেক সহযোগী নিহত হয়। বাবলাও প্রায় ১ বছর ছিলো জেল হাজতে। সম্প্রতি জামিনে বের হয়ে মেঘনা নদীতে সক্রিয় হয়ে উঠে। মেঘনা নদীর কালিরচর ও এর আশপাশ এলাকার মানুষের কাছে আতংকের অপরনাম ছিলো বাবলা বাহিনী ।
মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আনিচুর রহমান জানান, বাবলা একজন সক্রিয় ডাকাত। তার বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ এবং পার্শবর্তী চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানায় প্রায় ১০ টি মামলা রয়েছে। বাবলার সাথে জড়িত অন্যান্য ডাকাত দলের সদস্যদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ:
BengaliEnglish