December 3, 2022, 1:51 am

সমাজকে যৌতুকমুক্ত করতে প্রয়োজন পারিবারিক সচেতনতা

যৌতুক প্রথা ও নারী নির্যাতন বাংলাদেশে সামপ্রতিক সমস্যাগুলোর মধ্যে সর্বাধিক অমানবিক ও বেদনাদায়ক সমস্যা। যৌতুক হলো এক ধরনের দাবি সামাজিক মর্যাদা বা ‘স্ট্যাটাস’ বজায় রাখতে কেবল নিম্নবিত্ত বা মধ্যবিত্ত নয়, উচ্চ মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত পরিবারেও উপহারের নামে যৌতুক দেয়ার চল রয়েছে বাংলাদেশে। সমাজকে যৌতুকমুক্ত করতে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন পারিবারিক সচেতনতা। শিক্ষিত মধ্যবিত্ত বা উচ্চবিত্ত পরিবারে তথাকথিত যৌতুক প্রথা সাধারণত পরিলক্ষিত হয় না।

কিন্তু অন্যভাবে কন্যার পরিবারকে চাপের মধ্যে রাখা হয়, যেটা যৌতুকের অন্তর্ভুক্ত। অনেকে মনে করেন নিজের মেয়েকে সুখে থাকবে তাই ভালো করে বেশি বেশি জিনিস দিয়ে তাকে শ্বশুরবাড়ি পাঠানো হোক। কিন্তু তারা একটা জিনিস বুঝতে পারেন না যে, এই দেয়ার প্রবণতা অন্যপক্ষের চাওয়ার প্রবণতাকে আরও বাড়িয়ে দেয়।

অর্থাৎ যৌতুক যে লোভ, সেই লোভকে আরও উসকে দেয়া হয়। কেননা আমাদের সমাজে ধরেই নেয়া হয় পুত্র সন্তান মানেই ধন-সম্পদ, পরিবারে অর্থ উপার্জন বা অর্থ আনার লক্ষ্মী। সুতরাং তাকে দেখেই যেন মেয়ের বাপ-মা সবকিছু উজার করে দেবেন। অথবা কেউ দেবেন চাকরি, কেউ দেবেন সম্পত্তি। সাধারণ অর্থে যৌতুক বলতে বিয়ের সময় বরকে কনের অভিভাবক কর্তৃক প্রদেয় অর্থ বা মূল্যবান সামগ্রীকে বুঝায়।

এছাড়া বর কনের আত্মীয়, অভ্যাগত অতিথিরা সাধারণত স্বেচ্ছায় নবদম্পতিকে দিয়ে থাকেন যা তারা তাদের নতুন সংসারে সুবিধামতো ব্যবহার করতে পারে। হিন্দু আইনে যৌতুককে নারীর সম্পত্তির উৎস বলা হয়। এতে তার নিরঙ্কুশ অধিকার স্বীকৃত। হিন্দু সমাজে নারীরা পুরুষদের মতো একইভাবে সম্পত্তির উত্তারিধকারী হতো না। তাই অনেক আগে থেকেই হিন্দু সমাজে নারীদেরকে বিয়ের সময়ে যৌতুক দেবার প্রচলন ছিল। কালক্রমে তা বিয়ের পণ হিসাবে আভির্ভূত হয় যা একসময় কনে পক্ষের জন্য এক কষ্টকর রীতি হয়ে দাঁড়ায়।

১৯৮০ সালের যৌতুক নিরোধক আইন অনুসারে ‘প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যদি কোনো পক্ষ অপরপক্ষকে বিয়ের আগে-পরে-চলাকালীন যেকোনো সময় যেকানো সম্পদ বা মূল্যবান জামানত হস্তান্তর করে বা করতে সম্মত হয় সেটাই যৌতুক বলে বিবেচ্য হবে।’ তবে বিয়ের সাথে সরাসরি সম্পর্কিত নন এমন কেউ ৫০০ টাকা বা তার চেয়ে কম মূল্যমানের কোনো বস্তু উপহার হিসেবে কোনো পক্ষকে দিলে তা যৌতুক হিসেবে বিবেচিত হবে না। তবে বিয়ের শর্ত হিসেবে এই সমপরিমাণ কোনো কিছু আদান-প্রদান করলে তা যৌতুক হিসেবে বিবেচিত হবে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০ অনুসারে বিয়ে স্থির থাকার শর্ত হিসেবে বা বিয়ের পণ হিসেবে প্রদত্ত অর্থ বা প্রদান করা হবে এই মর্মে কোনো শর্ত যেকোনো সম্পদকে যৌতুক হিসেবে বিবেচিত হবে। তবে মুসলিম সমপ্রদায়ের বিয়ের ক্ষেত্রে বিয়ের মোহরানা যৌতুক হিসেবে বিবেচিত হবে না। প্রচলিত আইনে যৌতুক দেয়া বা নেয়া উভয়ই শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে।

অপরাধ প্রমাণিত হলে এক থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত জেল বা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ড হতে পারে। যৌতুক দাবি করার জন্যও একই সাজা হতে পারে। বাংলাদেশের সমাজে যৌতুকের জন্য নারীর প্রতি অসম্মান ও অত্যাচারের অনেক ঘটনা ঘটে। এমনকি যৌতুকের দাবিতে স্বামী বা তার আত্মীয়-স্বজনদের দ্বারা অত্যাচারের পর হত্যাকাণ্ডের ঘটনাও কম নয়।

যৌতুক একটি সামাজিক ব্যাধি শুধু নয়, মারণব্যধির মতো আমাদের সমাজে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে রয়েছে। যৌতুক যে দেয় এবং যৌতুক যে নেয় দুজনেই সমান অপরাধী, এই আইনের মূল মন্ত্র জানলেও কজন তা মানে? তাই শুধু আইন করে এ সমস্যা সমাধান সম্ভব নয়। এ জন্য প্রয়োজন ঘর থেকে ঘরে আন্দোলন ছড়িয়ে দেয়া।

এ ব্যাপারে সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর আরও নানা ধরনের পদক্ষেপ নেয়া উচিত। ধর্মীয় ও সামাজিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যৌতুকবিরোধী প্রচারণা চালানোর উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। পাঠ্যপুস্তকে যৌতুকবিরোধী বিষয় এবং যৌতুক সংক্রান্ত আইনগুলো অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে। মানবাধিকার সংগঠন ও এনজিওগুলো যৌতুকবিরোধী প্রচারণা চালাতে পারে। গণমাধ্যমে যৌতুকবিরোধী প্রচারাভিযানের ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

যৌতুক প্রথা শুরু হয় সনাতনকাল থেকে, নারীরা উত্তরাধিকার সূত্রে পুরুষদের কাছ থেকে সম্পত্তি লাভ করতে পারত না। সে সময় থেকে হিন্দু আইনে যৌতুক নারীর সম্পত্তির উৎস হিসেবে বিয়ে-শাদিতে যৌতুককে পণপ্রথা হিসেবে প্রচলণ করেন। বিশেষ করে বিয়ে-শাদিতে কনে পক্ষও বরপক্ষের কাছ থেকে অতিরিক্ত দেনমোহর দাবি করেন। যা ইসলামে শরীয়াহ বিরোধী এই সুযোগে বরপক্ষও কনে পক্ষের কাছ থেকে বিয়ের যৌতুকসহ খাবারের মেনুও দাবি করেন। উচ্চবিত্তদের অনেকে গাড়ি বাড়ি ফ্ল্যাট পর্যন্ত গিফট দিয়ে থাকেন। নিম্নশ্রেণির মেয়ের বিয়েতে দুই থেকে চার লাখ টাকা চাঁদা তুলে কন্যা পাত্রস্থ করেন অসহায় বাবা।

আর আঁরার চাটগাঁইয়া অপসংস্কৃতি যুগ যুগ ধরে হয়ে আসছে, এ জন্য আমাদের কিছু লোভী ও মোড়ল শ্রেণির অভদ্র লোক দায়ী। আর একটা মেয়েকে তার বাবা কত কষ্ট করে লালনপালন করে পড়ালেখা শেষ করে সারাজীবনের কষ্টার্জিত সঞ্চয় খরচ করে বিয়ে দেন। একটা মেয়ে যখন বিয়ের পর তার বাবা-মা, ভাইবোন ও নিজভূমটা ছেড়ে শ্বশুরবাড়িতে যায়, সে তখন অনেকটা এতিমের মতো হয়ে যায়।

যৌতুক প্রতিরোধে কয়েকটি সুপারিশমালা
১. যৌতুক লেনদেন একটি অভিশপ্ত প্রচলন এবং ঘৃণাজনক প্রথা। এর বিরুদ্ধে গণসচেতনতা বাড়াতে জনমত গড়ে তোলার লক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে ওয়াজ, নসিহত, সভা, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, আলোচনা অনুষ্ঠান করে যৌতুক প্রতিরোধে ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তোলা আবশ্যক। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, যৌতুকবিরোধী আইন থাকলেও তার বাস্তবায়ন নেই। তাই দেশের অসহায় নারীদের যৌতুকের নির্যাতন থেকে রক্ষা করা অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

২. যৌতুক দিয়ে বিয়ে সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে।

৩. দেশের সব মসজিদে জুমার খুৎবার আগে যৌতুক সম্পর্কে শরিয়তের বিধান ও হুকুম সম্পর্কে অবহিত করতে হবে।

৪. সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিণত বয়সের ক্লাসগুলোতে ‘যৌতুক’ যে অত্যন্ত জঘন্য ও অভিশপ্ত প্রথা সে বিষয়ে শিক্ষা প্রদান করতে হবে।

৫. গ্রাম, গঞ্জ, পাড়া-মহল্লায় সর্বস্তরের সমাজকর্মীদের নিয়ে ‘যৌতুক প্রতিরোধ কমিটি’ গঠন করতে হবে। শুধু তাই নয়, এর বাস্তবায়নের জন্য মুরব্বিদের সচেতন ও শক্ত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। যৌতুক দিয়ে বিয়ে-শাদিতে যারা জড়িত তাদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে।

৬. যৌতুক আদায়ে যেসব স্বামী স্ত্রীকে মারধর করে বা বাবার বাড়িতে টাকা বা অর্থ আনতে পাঠিয়ে দেয়, তাদের তাৎক্ষণিকভাবে পাকড়াও করে পুলিশে সোপর্দ করতে হবে।

৭. বিশেষ করে কাবিননামা ফরমে ‘যৌতুকের কোনো দাবি নেই’ মর্মে আদালতগ্রাহ্য হলফনামায় স্বাক্ষরদানের ধারা প্রবর্তনের দাবি সরকারের কাছে তুলে ধরতে হবে।

৮. দেশে অসংখ্য কন্যাদায়গ্রস্ত গরিব-দুঃখী, অসহায় বাবা-মার বিয়েযোগ্য কন্যাদায়গ্রস্ত পরিবার আছে, যারা অভাবের জন্য বিয়ে সুসম্পন্ন করতে পারছে না। বিয়েযোগ্য এসব মেয়ের বিয়ের বিষয়ে দেশের ধনাঢ্য, বিত্তবান ও সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে।

৯. দেশের সব জাতীয় সংবাদপত্র, বেতার, টিভি এবং দেশি চ্যানেল মিডিয়াকে যৌতুক প্রতিরোধে যৌতুকবিরোধী টক শোর ব্যবস্থা করতে হবে। এসব টক শোতে আলেম, ওলামা, ইমাম, পীর-মাশায়েখদের দিয়ে যৌতুকের ভয়াবহ কুফল পরিণতির কথা জনসমক্ষে তুলে ধরার ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. যৌতুকবিহীন বিয়ে সম্পন্ন করতে দেশের সর্বত্র নিজ নিজ এলাকার গণ্যমান্য মুরব্বি, অভিভাবক মহল, ধনাঢ্য-বিত্তবান, আলেম, ওলামা, ইমাম ও কাজী সাহেবদের যৌতুক লেনদেন বন্ধ করার মনমানসিকতা তৈরি করতে হবে। মনে রাখবেন, বিয়ে-শাদি মানবজীবনের একটি পবিত্র কাজ। অতএব আসুন, যৌতুক লেনদেন চিরতরে বিলুপ্ত করে নিজ নিজ ক্ষেত্রে মানবিক কর্তব্য পালনে সচেষ্ট হই।

পরিশেষে বলতে চাই, বর্তমান প্রজন্মদের কিশোর বয়স থেকে শপথ নেয়া উচিত— আমরা যৌতুক দিব না, যৌতুক নিবও না। আসুন যৌতুকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ি তুলি। যৌতুককে না বলি। যারা যৌতুক দাবি করে তারা এই সমাজের ভয়ানক ভাইরাস, যৌতুক গ্রহীতারা সমাজের সবচেয়ে লোভী ভিক্ষুক, মিসকিন, আসুন ওদেরকে সমাজে চিহ্নিত করে বয়কট করি।

লেখক : প্রতিষ্ঠাতা, জাতীয় রোগী কল্যাণ সোসাইটি, সংগঠক, লেখক ও গবেষক

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     আরও সংবাদ :