July 22, 2024, 4:36 am

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে কৃষি, সংস্কৃতি ও টাকা-রুপির বিনিময় নিয়ে তিন চুক্তি সই হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে দেশটির সঙ্গে কৃষি খাত, সংস্কৃতি ও টাকা-রুপির বিনিময় বিষয়ে তিনটি সমঝোতা স্মারক সই করা হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর এবং রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের ঢাকা সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

সাংবাদিকদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী জি টুয়েন্টি সম্মেলনের দুটি অধিবেশনে বক্তব্য দেবেন। জলবায়ু পরিবর্তন, করোনা মহামারি ও যুদ্ধের কারণে জরুরি পণ্যের নিবির্ঘ্ন সরবরাহ নিয়ে বক্তব্য দেবেন তিনি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠক প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দু’দেশের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সব বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে।

আব্দুল মোমেন জানান, সম্মেলনের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত, সৌদি আরব, আর্জেন্টিনা, আরব আমিরাত, কানাডার শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করতে পারেন।

ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, শুক্রবার বিকেলে বাংলাদেশ ও ভারতের দুই সরকারপ্রধান বৈঠকে বসছেন।

বাংলাদেশের আগামী নির্বাচন, আঞ্চলিক রাজনীতির নানা ইস্যুর কারণে এই দুই সরকারপ্রধানের বৈঠককে গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে।

অন্যবারের মতো হায়দরাবাদ হাউজ বা সাউথ ব্লকে না বসে নয়দিল্লিতে মোদির নিজের বাসভবনে শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন তিনি।

আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, ‘কূটনৈতিক শিবিরের মতে, আন্তরিকতার বার্তা দিতেই এই গৃহঅভ্যর্থনার আয়োজন করা হয়েছে।’

শনিবার সকাল থেকে শুরু হচ্ছে ১৭তম জি-২০ শীর্ষ সম্মেলন। সেখানে যোগ দিতে শুক্রবার ভারত সফরে যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া জি-২০ সম্মেলনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ বেশ কিছু রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান অংশ নেবেন।

জি-২০ গোষ্ঠীর সদস্য না হলেও দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শুধু বাংলাদেশকেই ওই সম্মেলনে যোগ দেবার আমন্ত্রণ জানিয়েছে আয়োজক ভারত।

আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, ভারত জি২০ গোষ্ঠীর সভাপতিত্ব পাওয়ার পরই মোদি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশকেই সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত, যা দুই দেশের সম্পর্ক ‘অনন্য উচ্চতায়’ পৌঁছনোর দৃষ্টান্ত বলেই ধরছে কূটনৈতিক মহল।

এদিকে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের অমিমাংসিত ইস্যু তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি সম্পর্কে কিছু জানেন না উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, গঙ্গাচুক্তি নিয়ে ইতোমধ্যেই কথাবার্তা শুরু করেছে। তবে তিস্তা চুক্তি সম্পর্কে তিনি কিছু জানেন না।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন আরও জানান, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে বৈঠকে ঢাকা নির্ধারিত সময় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালুর তাগিদ দেবে ।

অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তাকে স্বাগত জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জাতীয় নির্বাচনে কারও মাতবরি সহ্য করবে না বাংলাদেশ। তবে নির্বাচনকেন্দ্রিক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতাকে স্বাগত জানাচ্ছে সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও সংবাদ :