শার্শার গোগায় কৃষক আরশাফের বাড়িতে ফেন্সিডিল রেখে হয়রানি করার অভিযোগ

0
11

আরিফুজ্জামান আরিফ ।।শার্শার গোগা বিলপাড়া গ্রামে আরশাফ আলী ( ৪৫) নামের এক কৃষককের বাড়িতে ফেন্সিডিল রেখে মাদক ব্যাবসায়ী বলে হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরজমিনে জানা গেছে, যশোরের শার্শা উপজেলার গোগা বিলপাড়া গ্রামের মেম্বর মিজানুর রহমান সম্প্রতি সরকারি রাস্তার ইট আত্মসাৎ করে নিজের বাড়িতে রাখে এবং বাড়ীর বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করে। মিজান মেম্বরের বাড়িতে রাস্তার ইট রাখার সংবাদটির বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হয়ে গেলে সংবাদ কর্মীরা সরেজমিন গেলে
(গোগা বিলপাড়া)একই গ্রামের আব্দুল হাকিমের ছেলে আরশাফ আলী সহ গ্রামের অনেকেই বিষয়টি সাংবাদিক সহ উপস্হিত
সকলকে জানিয়ে দেয়।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মিজান মেম্বর।ফলে মিজান
ও তার লোকজন আশরাফ কে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয় এবং ফেন্সিডিল দিয়ে ফাঁসানোর হুমকিও প্রদান করে। একারনে এসময় আরশাফ আলী তার জানমাল আত্মরক্ষা ও সম্মানের ক্ষতি হওয়ার আশংঙ্কায় শার্শা থানার একটি সাধারণ ডায়েরী ( জি ডি ) করে। এতে আরো ক্ষিপ্ত হয় যায় মিজান মেম্বর ও বাহিনীরা।

এরই জের ধরে শুক্রবার বিকালে আরশাফ আলীর বাড়ির ভাঙ্গাচোরা ও ছাউনীবিহীন রান্নাঘরে ৩ বোতল ফেন্সিডিল ও ঘরের জানালার পাশে ১ বোতল ফেন্সিডিল রেখে আসে মিজান মেম্বরের ক্যাডাররা। পরে তারা আরশাফ আলীর বাড়িতে ফেন্সিডিল আছে বলে শার্শা থানা পুলিশকে সংবাদ দেয়। খবর পেয়ে শার্শা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক আবু বক্কর ছিদ্দিক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে এসে কৃষক আরশাফ আলীর ভাঙ্গাচোরা রান্না ঘরে ঢুকে চুলার ভিতর থেকে ৩ বোতল ফেন্সিডিল ও বসতঘরের ভিতরে ঢুকে আরে ১বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে এবং আশরাফ আলীকে আটক করে।এসময় আশরাফ আলীর ভাই মোশারফ কে সাদা কাগজে সহি না করার অপরাধে আশরাফ আলীর সাথে তাকেও শার্শা থানায় নিয়ে যায়।

নিরীহ কৃষক আরশাফ আলী ফেন্সিডিল
সহ আটক হওয়ার খবর গ্রামের চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। শুক্রবার রাতেই গ্রামের ৭০/৮০জন লোক থানায় গিয়ে মেম্বর মিজানের চক্রান্তের বিষয়টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে অবহতি করে।

এ সময় শার্শা থানার ওসি আতাউর রহমান পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের জানিয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে তদন্ত করলে কৃষক আরশাফ আলী নির্দোষ প্রমানিত হয়। পুলিশ ঐ রাতেই স্থানীয় চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদের জিম্মায় আরশাফ আলীকে ছেড়ে দেয়।

তবে এই মাদকের মূল মালিক কে বা কোন সোর্স এই ফেন্সিডিল রেখে পুলিশের মাধ্যমে আরশাফ আলীকে হয়রানি করার জন্য এই ঘটনা ঘটিয়েছে পুলিশ তা জানায়নি।

বিষয়টি নিয়ে গোগা বিলপাড়ার মেম্বর মিজানুর রহমান বলেন ফেন্সিডিল সহ আরশাফকে পুলিশ ধরেছে শুনেছি। তবে
ফেন্সিডিল রাখার বিষয়ে আমি কিছু জানিনা।

এ ব্যাপারে শার্শা থানার অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমান বলেন, কোন নিরীহ মানুষ জেল খাটবে তা আমি কখনোই চাই না। তাই উর্ধতন কর্মকর্তাদের জানিয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে তদন্ত করে কৃষক আরশাফ আলী নির্দোষ হওয়ায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here