হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি শনিবার শুরু

0
8

অনলাইন ডেস্ক।
সাড়ে ৩ মাস পর ভারত সরকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ায় দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আবারও শুরু হচ্ছে পেঁয়াজের আমদানি।

কোনো জটিলতা না থাকলে শনিবার (২ জানুয়ারি) থেকে দেশে পৌঁছাবে পেঁয়াজের চালান। এমনটিই জানিয়েছেন বন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারকেরা। ইতোমধ্যে তারা কয়েকটি ব্যাংকে এলসিও করেছেন।

হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকেরা জানান, ভারত সরকার গত বছরের ১৪ সেপ্টেবম্বর অভ্যন্তরীণ বাজারে সংকট ও মূল্যবৃদ্ধির অজুহাতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে। এরফলে দেশে পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা দেখা দিলে দাম কয়েকগুণ বেড়ে যায়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকেরা মিয়ানমার, পাকিস্তান, মিশর, তুরস্ক ও চীন থেকে বিপুল পরিমাণে পেঁয়াজ আমদানি করে। এ অবস্থায় বাজারে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করে। তখন প্রতি কেজি বিক্রি হয় ৫০-৬০ টাকার মধ্যে।

বাংলাহিলি বাজারের খুচরা বিক্রেতা মঈনুল ইসলাম, শাকিল হোসেন জানান, তারা শুনেছেন ভারত থেকে শনিবার দেশে পেঁয়াজ আসছে। এই খবর বাজারে পৌঁছালে প্রতি কেজিতে ৭-৮ টাকা করে দাম কমে গেছে। শুক্রবার বিক্রি হয়েছে ৩০-৩২ টাকায়। গত বুধবার এই পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৩৬/৪০ টাকায়। তার আগে বিক্রি হয় ৩৬-৪০ টাকায়।

হিলি স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, পেঁয়াজ রপ্তানির উপর যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল ভারত সরকার তা গত ২৮ ডিসেম্বর তুলে নিয়েছে। ফলে হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকেরা ভারত থেকে নতুন করে ৫-৬ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য অনুমতি নিতে উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রে আবেদন করেছেন। আজ-কালের মধ্যে তাদের অনুমোদন দেয়া হতে পারে।

এদিকে হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ জানান, কোনো জটিলতা না থাকলে শনিবার ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হবে। অনেক আমদানিকারক ব্যাংকে এলসি করেছেন। তবে বাংলাদেশে রপ্তানির ক্ষেত্রে ভারত সরকার এখনও নির্দিষ্ট করে কোনো মূল্য নির্ধারণ করে দেয়নি। তাই ধারণা করা হচ্ছে ২০০-৩০০ ডলারের মধ্যেই আমদানি করা যাবে। ভারতের পেঁয়াজ বাজারে আসলে ২০-২৫ টাকার মধ্যে পাইকারি বিক্রি হবে। তবে চাহিদার উপর নির্ভর করে পেঁয়াজ আমদানি করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here