ঢাকার ট্যানারি মালিকদের কাছে ঝিনাইদহের চামড়া ব্যাবসায়ীদের পাওয়ানা এক কোটি ২২ লাখ

0
3

স্টাফ রিপের্টার, ঝিনাইদহঃ
ঢাকার ট্যানারি মালিকদের কাছে ঝিনাইদহের চামড়া ব্যাবসায়ীদের পাওয়ানা রয়েছে এক কোটি ২২ লাখ ২৮ হাজার টাকা। সরকারের টাকা উদ্ধারের ঘোষনায় সাড়া ঝিনাইদহ চেম্বারের কাছে এ হিসাব দাখিল করেছেন ঝিনাইদহের পাইকারী চামড়া ব্যাবসায়ীরা। এদিকে বছরের পর বছর পাওয়ানা টাকা না পেয়ে ঝিনাইদহ শহরের ৫জন জামড়া ব্যাবসায়ী পথে বসতে চলেছেন। তাদের ব্যবসা সংকুচিত হয়ে পড়েছে। দায় দেনায় জড়িয়ে অপমান অপদস্ত হচ্ছেন প্রতিনিয়িত। অন্যদিকে টাকা না দিয়ে ঢাকার ট্যানরি মালিকরা টালবাহানা করছেন। দিনের পর দিন ঘুরাচ্ছেন। ঝিনাইদহ চেম্বার অব কমার্স অফিস সুত্রে জানা গেছে ঝিনাইদহের চামড়া ব্যবসায়ী মাহবুবুর রহমান পুরানো মিনা বাজার, ধানমন্ডি এলাকার ট্যানারি মালিক সোলাইমান হোসেন মঞ্জুর কাছে পাবেন ২৫ লাখ ১০০৫ টাকা, ট্যানারি মালিক সাইফুল ইসলামের কাছে হারুন নামে আরেক চামড়া ব্যাবসায়ী পাবেন ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা, জিয়া লেদারের কাছে আবু তাহের নামে ঝিনাইদহের এক চামড়া ব্যাবসয়ী পাবেন ৬ লাখ ৩৯ হাজার ৩২০ টাকা, হেমায়েতপুর সাভার এলাকার এমেক্স লেদারের কাছে চামড়া ব্যাবসায়ী ফকরুলের পাওয়ানা ৫০ লাখ ৫৫ হাজার ৯৪৪ টাকা ও ঝিনাইদহের ব্যাপারীপাড়ার চামড়া ব্যাবসায়ী আজিজার রহমান ঢাকার সীমান্ত লেদারের মালিক আবুল বয়ান হাজীর কছে পাবেন ৩৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫০ টাকা। বছরের পর বছর এই টাকা পরিশোধ না করে আটকে রাখা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ঝিনাইদহ চেম্বারের সেক্রেটারি এনামুল জানান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ নিয়ে চেম্বার নেতৃবৃন্দের সাথে এফবিসিসিআইয়ের বৈঠক চলাকালেই ঝিনাইদহ চেম্বারের সভাপতি পৌর মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু ফোন করে তালিকা প্রণয়ের নির্দেশ দেন। সেই মোতাবেক আমরা তালিকা করি। আমরা তালিকা পাওয়ার পর তা এফবিসিসিআই তে পাঠিয়ে দিয়েছি। এখন উপর থেকে কি সিদ্ধান্ত আসে সেটাই দেখার বিষয়। চেম্বারের সেক্রেটারি এনামুল জানান, এখনো আমরা অন্ধকারেই আছি। কোন সিদ্ধান্ত হলে আমরা জানতে পারতাম বলেও তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here