April 15, 2024, 9:19 pm

পাঁচ সেকেন্ডের যে প্রমাণ দিলেন ‘টাইমড আউট’র শিকার ম্যাথুজ

ভারতের ধর্মশালায় আফগানিস্তানের বিপক্ষে দারুণ জয়ে ওয়ানডে বিশ্বকাপ শুরু করেছিলো বাংলাদেশ। এরপর চেন্নাই, পুনে, মুম্বাই, কলকাতা চারটি ভেন্যুতে ছয়টি ম্যাচ খেলেছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা; যার সবগুলোতেই হার হয়েছে সঙ্গী। অবশেষে পাক্কা ২৯ দিন পর সোমবার (৬ নভেম্বর) দিল্লিতে শ্রীলঙ্কাকে শাসন করলো বাংলাদেশ। আর তাতেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে জায়গা করে নেওয়ার দৌড়ে টিকে থাকলো সাকিব বাহিনী। কিন্তু তা ছাপিয়ে আলোচনায় রাজ করছে ‘টাইমড আউট’।

সংবাদ সম্মেলনে জোর গলাতেই অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ বলেছেন, ‘টাইমড আউট’ হওয়ার আগে নির্ধারিত দুই মিনিটের মধ্যেই তিনি ব্যাটিংয়ের জন্য প্রস্তুত ছিলেন। স্পষ্ট করে আরো বলেছেন, যখন তার হেলমেটে সমস্যা দেখা দেয়, তখনো দুই মিনিট পার হতে ৫ সেকেন্ড বাকি ছিলো। যথাযথ প্রমাণ তার কাছে আছে।

সংবাদ সম্মেলনের কিছুক্ষণ পর নিজের দাবির পক্ষে এক্সে (সাবেক টুইটার) দু’টি স্থিরচিত্র প্রকাশ করেছেন ম্যাথুজ। বলেছেন, চতুর্থ আম্পায়ারের ভুল তথ্যের প্রমাণ এটি।

দিল্লিতে ম্যাথুজ ‘টাইমড আউট’ হন শ্রীলঙ্কা ইনিংসের ২৫তম ওভারে। এ নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ক্রিকেট বিশ্বে তুমুল আলোচনা শুরু হওয়ার পর ইনিংস বিরতিতে আউটের ব্যাখ্যা দেন চতুর্থ আম্পায়ার আদ্রিয়ান হোল্ডস্টক।

তিনি জানান, সর্বশেষ ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পর থেকে ম্যাথুজের হেলমেটে সমস্যা দেখা দেওয়ার মাঝে দুই মিনিট পার হয়ে গিয়েছিলো। আইন অনুযায়ী, প্রতিপক্ষ অধিনায়ক আবেদন করলে ব্যাটসম্যান ওই সময় আউট হয়ে যান। ম্যাথুজের ক্ষেত্রে এটাই ঘটেছে।

এক্সে আম্পায়ারের এ বক্তব্যের ভিডিওতে মন্তব্য করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন ম্যাথুজ। তিনি লিখেছেন, চতুর্থ আম্পায়ার ভুল বলেছেন। ভিডিও প্রমাণ বলছে, হেলমেট খুলে ফেলার পরও ৫ সেকেন্ড বাকি ছিলো। চতুর্থ আম্পায়ার কি অনুগ্রহ করে সংশোধন করবেন? আমি বলতে চাচ্ছি, নিরাপত্তা সবার আগে, আমি তো হেলমেট ছাড়া একজন বোলারের মুখোমুখি হতে পারি না।

এ মন্তব্যের চার মিনিট পর পাশাপাশি জোড়া লাগানো দু’টি ছবি পোস্ট করেন ম্যাথুজ। যেখানে ম্যাথুজ নামার আগে সাদিরা সামারাবিক্রমার ক্যাচ নিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ছবির ওপরের অংশে থাকা ঘড়িতে সময় ৩টা ৪৮ মিনিট ৫০ সেকেন্ড। পরের ছবিটি ম্যাথুজের হেলমেট খোলার চেষ্টার, সময় ৩টা ৫০ মিনিট ৪৫ সেকেন্ড।

এ ছবির সঙ্গে ম্যাথুজ লিখেছেন, প্রমাণ! ক্যাচ নেওয়ার সময় এবং হেলমেটের স্ট্র্যাপ ছুটে যাওয়ার সময়।

এদিকে, খেলা শেষে লঙ্কান ক্রিকেটাররা বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সঙ্গে হাতই মেলায় না। ম্যাচ শেষে যখন দুই দলের খেলোয়াড়দের হাত মেলানোর কথা, তখন বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়-কোচরা ড্রেসিংরুম থেকে নেমে এলেও লঙ্কান ক্রিকেটাররা আগেই মাঠ ছেড়ে চলে যান। বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন শুধু লঙ্কান কোচরাই।

লঙ্কানদের এই আচরণ ক্রিকেটীয় চিরন্তন চেতনার পরিপন্থী বলেও মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ। পাকিস্তানের সাংবাদিক ফরিদ খান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন, ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের সঙ্গে হাত মেলায়নি শ্রীলঙ্কা। অধিনায়ক কুশল মেন্ডিস প্রতিপক্ষকে অভিবাদন জানানোর বদলে পুরো দল নিয়ে উঠে যান।

ম্যাচ শেষে সাকিবও জানান, লঙ্কান ক্রিকেটারদের সঙ্গে তাদের হাত মেলানো হয়নি। সাকিবের ভাষায়, খেলা শেষে কোনো কথা হয়নি। আমরা (হাত) মেলাইনি না, ওরা চলে গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও সংবাদ :