August 20, 2022, 8:59 am

চাঞ্চল্যকর ও ক্লু-লেস ‘‘হৃদয় মিয়া’’ হত্যাকান্ডের হত্যাকারী ও আন্তঃজেলা অটোরিক্সা চোর চক্রের সদস্য গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক।

র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধের উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতার, অপরাধ দমন ও আইন শৃংখলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তাছাড়া যে কোন চাঞ্চল্যকর মামলার রহস্য উদঘাটনের জন্য র‌্যাব ছায়া তদন্ত করে আসছে।

গত ০৭ অক্টোবর তারিখে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন পূর্বাচল নতুন শহরের ৭নং সেক্টরের ২১৯ নং রোডে ১৪২/এ বাড়ীর উত্তর পাশে ফাঁকা রাস্তার উপর অজ্ঞাত এক ব্যক্তির গলাকাটা লাশ পাওয়া যায়। উক্ত ঘটনার খবর পাওয়ার পর গত ০৭ অক্টোবর ২০২১ তারিখে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মোঃ দুখাই মিয়া নামক এক ব্যক্তি গলাকাটা ও রক্তাক্ত লাশটি দেখে লাশটি তার ছেলে হৃদয় মিয়া বলে সনাক্ত করে। উক্ত ঘটনায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরূদ্ধে নিহতের বাবা মোঃ দুখাই মিয়া বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন, যার মামলা নং-০৯, তারিখ-০৮/১০/২০২১। এই ঘটনা স্থানীয় সকল গণমাধ্যমে সংবাদ আকারে প্রকাশিত হয় ও ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। অটোরিক্সা ছিনতাই ও চালককে হত্যা বর্তমানে ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করছে এবং অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, এসকল ছিনতাইকারীরা সংঘবদ্ধভাবে এসকল নৃশংস কার্যক্রম পরিচালনা করছে যা অটোরিক্সা চালকদের জন্য একটি আতঙ্কের কারন হয়ে দাড়িয়েছে।

উল্লেখিত বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি সংগ্রহসহ ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন ও ঘটনায় জড়িত অজ্ঞাতনামা আসামীদের গ্রেফতারে র‌্যাব-১১ এর একটি গোয়েন্দা দল ছায়া তদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১০ অক্টোবর ২০২১ তারিখে র‌্যাব-১১ এর একটি চৌকস আভিযানিক দল নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন ব্রাহ্মণখালি এলাকায় অভিযান চালিয়ে অটোরিক্সা চালক হৃদয় মিয়া’র নৃশংস হত্যাকারী ও অটোরিক্সা ছিনতাইকারী আশিক মিয়া (১৯), পিতা- মোঃ মনির হোসেন, গ্রাম- দরিগুতিয়াবো, থানা- রূপগঞ্জ, জেলা- নারায়ণগঞ্জ’কে সনাক্ত ও গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় এবং তার নিকট হতে ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করে।

প্রাথমিক অনুসন্ধান ও গ্রেফতারকৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, হত্যাকারী আশিক জনৈক মাদক ব্যবসায়ী মোঃ সবুজ (২০), পিতা- অজ্ঞাত, গ্রাম- তালতলা, থানা- রূপগঞ্জ, জেলা- নারায়ণগঞ্জ এর নিকট হতে নিয়মিত মাদক ক্রয় ও সেবন করত। একপর্যায়ে মাদক সেবন ও অন্যান্য কাজে আশিক এর অর্থের প্রয়োজন হলে সে সবুজ এর নিকট টাকা ধার চায়। তখন সবুজ তাকে অটোরিক্সা চালককে হত্যা করে অটোরিক্সা ছিনতাই করার বুদ্ধি দেয় এবং এই কাজে গামছা বা ছুরি ব্যবহার করার পরামর্শ দেয়। এছাড়াও সবুজ আশিক’কে রমজানের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয় এবং বলে যে ছিনতাইকৃত অটোরিক্সা রমজানের কাছে নিয়ে আসলে সে বিক্রি করে টাকার ব্যবস্থা করে দেবে। অতঃপর আশিক অটোরিক্সা ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে গত ০৭ অক্টোবর ২০২১ তারিখে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন ডাঙ্গা বাজার থেকে ২০ টাকা দিয়ে একটি ছুরি ক্রয় করে। অতঃপর পরিকল্পনা অনুযায়ী একই বাজার হতে একই দিন আনুমানিক বিকাল ০৪ টায় হৃদয় মিয়া’র অটোরিক্সা ভাড়া করে। এরপর আশিক কৌশলে হৃদয় মিয়ার অটোরিক্সা নিয়ে আনুমানিক সন্ধ্যা ০৭ টায় নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন পূর্বাচল এলাকায় যায় এবং পিছন থেকে আশিক তার সাথে থাকা গামছা দিয়ে অটোরিক্সা চালক হৃদয় মিয়ার গলায় পেচিয়ে ধরে শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করে। এসময় ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে আশিক হত্যার উদ্দেশ্যে তার সাথে থাকা ছুরি দিয়ে হৃদয় মিয়া’র গলায় আঘাত করে এবং গলা কেঁটে হত্যা নিশ্চিত করে। এরপর আশিক ভিকটিমের অটোরিক্সা চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী মোঃ সবুজ এর নির্দেশনা অনুযায়ী বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে গাজীপুর জেলার কালিগঞ্জ থানাধীন পাঞ্জরা এলাকায় যায় এবং সংঘবদ্ধ চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য রমজান মিয়া (৩৫), পিতা- মৃত আক্তারুজ্জামান, গ্রাং- মালখান, থানা- রূপগঞ্জ, জেলা- নারায়ণগঞ্জ এর নিকট অটোরিক্সাটি রেখে আসে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকারী আশিক আরো জানায় যে, মোঃ সবুজ ও রমজান মিয়া আন্তঃজেলা অটোরিক্সা চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য। হত্যাকারী আশিক এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী র‌্যাব-১১ এর আভিযানিক দল গত ১০ অক্টোবর ২০২১ তারিখে গাজীপুর জেলার কালিগঞ্জ থানাধীন পাঞ্জরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য রমজান মিয়া’কে গ্রেফতার করে এবং তার নিকট হতে ভিকটিমের ছিনতাই হওয়া অটোরিক্সাটি উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।

উক্ত হত্যাকান্ডের প্ররোচনাকারী ও চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য সবুজ গ্রেফতার এড়ানোর জন্য দেশের বিভিন্ন এলাকায় আতœগোপন করে আছে। তাকে গ্রেফতার করার জন্য র‌্যাব-১১ এর অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়কে সংশ্লিষ্ট মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার নিকট হস্তান্তর কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     আরও সংবাদ :